অনলাইন ডেস্কঃ ফের লকডাউনের কথা মাথায় রেখে ঈদুল আজহার পরদিন কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছেন কর্মজীবী মানুষ। ভোর থেকেই ভোলার ইলিশা লঞ্চঘাটে কর্মস্থলে ফেরা মানুষের ঢল নেমেছে।

ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) ভোর থেকে ঘাটে জড়ো হচ্ছেন যাত্রীরা। এতে পারাপারে হিমশিম খাচ্ছে লঞ্চগুলো।

চারটি সি-ট্রাক ও দুটি ফেরিতে যাত্রী পারাপার শুরু হলেও নৌযানের অভাবে ঘাটে আটকা পড়ে আছেন বিপুল সংখ্যক যাত্রী। তবে আটকেপড়া এসব যাত্রী পারাপারের জন্য অতিরিক্ত ট্রিপের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ঘাট কর্তৃপক্ষ।

বুধবার মধ্যরাত থেকে শুরু হওয়া কঠোর লকডাউনের আগেই কর্মস্থলে ফিরতে হবে তাদের। এ কথা চিন্তা করেই ভোলার ইলিশা ঘাটে হাজার হাজার মানুষ জড়ো হন।

সকাল সাড়ে ৭টা থেকে ১০টা পর্যন্ত ৪টি সি-ট্রাক, একটি লঞ্চ ও দুটি ফেরিতে প্রায় ১০ হাজার যাত্রী লক্ষ্মীপুরের মজু চৌধুরীর ঘাটের উদ্দেশে যাত্রা করেন। প্রতিটি নৌযানে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করতে দেখা গেছে। গন্তব্যে পৌঁছার এ প্রতিযোগিতা স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই ছিল না।

তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কোস্টগার্ড ও নৌপুলিশ আপ্রাণ চেষ্টা করেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারছে না বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে, মজু চৌধুরীর ঘাটে যাত্রী রেখে এসব নৌযান দ্রুত ইলিশা ঘাটে ফেরত আসবে। তবে যাত্রী নামিয়ে এসব নৌযান ইলিশা ঘাটে ফেরত আসতে আরও ৪-৫ ঘণ্টার করে সময় লাগছে। এ সময় অপেক্ষমাণ যাত্রীদের ইলিশা ঘাটেই থাকতে হচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর ও ঢাকাগামী কয়েক হাজার যাত্রী নৌযানের অভাবে ইলিশা ঘাটে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। অপরদিকে দুপুর থেকে ভিড় বাড়তে থাকে ঢাকাগামী যাত্রীদের। ঢাকার রুটে চলাচলকারী ৪টি লঞ্চের ধারন ক্ষমতার দ্বিগুণ যাত্রী পারপারের অপেক্ষায় রয়েছে। দুপুর ১টা থেকে সাড়ে ৩টার মধ্যে এ লঞ্চগুলো ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে।

ঘাটে আসা অপেক্ষমাণ যাত্রীরা জানান, যত কষ্ট হোক মধ্যরাতে লকডাউন শুরুর আগেই গন্তব্যে পৌঁছতে হবে। সে কারণেই সব দুর্ভোগ সহ্য করেই যাত্রা করেছেন। এ ছাড়া বিকেল থেকে সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে আরও ১৬টি বড় লঞ্চ যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওয়ানা দেবে বলে জানা গেছে।

বিআইডব্লিউটিএ-এর সহকারী পরিচালক (বন্দর) মো. কামরুজ্জামান জানান, দেশে আবার লকডাউন হবে। এ কারণে আজ যাত্রীর চাপ কিছুটা বেড়েছে। তাই ইলিশা- মজু চৌধুরীর ঘাটে অতিরিক্ত ট্রিপ দেওয়া হবে। আর নিয়মিত চলাচলকারী সব লঞ্চ প্রস্তুত আছে যাত্রী পরিবহনের জন্য। সূত্রঃ সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here