অনলাইন ডেস্কঃ ঈদুল আযহা উপলক্ষে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরি ও লঞ্চঘাটে উপচে পড়া ভিড় সৃষ্টি হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে বৃষ্টি উপেক্ষা করে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাট থেকে লঞ্চ ও ফেরিতে করে যাত্রীরা দৌলতদিয়া ফেরি ও লঞ্চঘাটে পৌছায়।

দৌলতদিয়া লঞ্চঘাটে সকালে দেখা যায়, লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ উপেক্ষা করে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে দৌলতদিয়া লঞ্চঘাটে আসছেন যাত্রীরা। অন্যদিকে, ফেরিঘাট এলাকায় দেখা যায়, পাটুরিয়া থেকে ছেড়ে আসা ফেরিগুলোতে বাস ও ট্রাকের পাশাপাশি শত শত যাত্রী ফেরিঘাটে আসছে।

দৌলতদিয়া নদী বন্দরে এসে এসব যাত্রীরা বাসসহ ব্যাটারিচালিত কাভার্ডভ্যান, ইজিবাইকে করে যাত্রীরা দেশের বিভিন্ন স্থানে যাচ্ছেন। তবে দৌলতদিয়া নদীবন্দর এলাকা থেকে অধিকাংশ যানবাহনে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ করেন এসব যাত্রীরা।

সাভার থেকে ছেড়ে আসা পোশাক শ্রমিক মো. আনোয়ার শেখ বলেন, গতকাল ছুটি হওয়ার কারণে আজ সকালে তিনি সাভার থেকে রওনা দিয়েছেন। অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

গাবতলি থেকে  ছেড়ে আসা যাত্রী আলেয়া বেগম বলেন, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ১৬টি ফেরি চলাচল করে আসছিলো। সেখান থেকে একটি ফেরি অন্যরুটে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। যার কারণে এই রুটে ভোগান্তি সৃষ্টি হয়েছে।

দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডাব্লিউটিসির) ম্যানেজার মো. শিহাব উদ্দীন বলেন, গতকাল সোমবার পর্যন্ত দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে যাত্রী ও যানবাহনে চাপ কম থাকার কারণে একটি ফেরি অন্য রুটে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। আজ যাত্রীর চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। দুপুরের মধ্যে একটি ফেরি এ রুটে যুক্ত হবে। সূত্রঃ বিডি প্রতিদিন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here