অনলাইন ডেস্কঃ রাজধানীতেও আইসিইউ যেন সোনার হরিণ হয়ে উঠছে। সরকারি হাসপাতালে আইসিইউ শয্যা না পেয়ে রোগীর স্বজনদের ছুটতে হচ্ছে বেসরকারি হাসপাতালে। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না এলে পরিস্থিতি আরও নাজুক হওয়ার শঙ্কা খোদ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের।

প্রিয়জন হারানোর মিছিলে যুক্ত হচ্ছে একের পর এক পরিবার। শোকার্ত পরিবেশ রাজধানীর কোভিড হাসপাতালগুলোতে।

সপ্তাহ খানেক ধরেই কোভিডের নানা উপসর্গে ভুগছেন রাজধানীর কাউলার বাসিন্দা ৫০ ঊর্ধ্ব এক নারী। দুইদিন আগে ভর্তি করা হয় কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে। অবস্থার অবনতিতে আরও কয়েক সরকারি হাসপাতালে খোঁজ করেও আইসিইউ না পাওয়ায় ছুটতে হচ্ছে এখন বেসরকারি চিকিৎসাকেন্দ্রে।
ভুক্তভোগীরা বলছেন, টাকা পয়সা না থাকার কারণেই কুর্মিটোলায় এসেছি। কিন্তু এখানে আইসিইউ না থাকায় বেসরকারি হাসপাতাল দেখানো হচ্ছে।
 
আইসিইউ নিয়ে এ হাহাকার এখন অনেকেরই নিয়তি হয়ে দাঁড়িয়েছে। রোগীর চাপে সাধারণ শয্যা না পেয়ে এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে স্বজনদের ছোটাছুটিও এখন নিয়মিত দৃশ্য।
সংক্রমণ রাশ টানতে না পারলে হাসপাতাল পরিস্থিতি আরও নাজুক হওয়ার শঙ্কা খোদ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা বলেন, এ মুহূর্তে দরকার সংক্রমণের শিকলটি ভেঙে দেওয়া। সংক্রমণের শিকল ভেঙে দিতে পারলে রোগীর সংখ্যা কমে যাবে। তখন বর্তমানের চাপটিও আর থাকবে না।
গত ৪ দিন ধরেই দেশে কোভিড শনাক্ত হচ্ছে ১২ হাজারের ওপরে, আর টানা ৫ দিন ধরে প্রাণহানি দুইশর বেশি। সূত্রঃ সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here