অনলাইন ডেস্কঃ ইরানি অ্যাথলেট ফারজানে ফাসিহি। অসাম্প্রদায়িক কোটায় এবার টোকিও অলিম্পিকে অংশ নেয়ার সুযোগ পেয়েছেন ২৮ বছর বয়সী এই অ্যাথলেট। অংশ নেবেন ১০০ মিটার স্প্রিন্টে। এত বড় আসরে অংশ নেয়ার সুযোগ পেয়ে দারুণ রোমাঞ্চিত ফারজানে। চান নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে আগের সব রেকর্ড ছাড়াতে।

ইরানের ইতিহাসে ৫৭ বছরে এই প্রথম কোন অ্যাথলেট হিসেবে ফারজানে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করবেন দ্যা গ্রেটেস্ট শো অন আর্থের ১০০ মিটার স্প্রিন্টে। এমন প্রাপ্তির পর উচ্ছাসের মাত্রাটা আকাশচুম্বি হবে তাতো স্বাভাবিকই। আর এ অনুভূতি যে ভাষায় প্রকাশ করার মত নয়, তা নিজেই জানালেন ফারজানে।ইরানের স্প্রিন্টার ফারজানে ফাসিহি বলেন, এটা আমার কাছে স্বপ্নের মত। আমার মনে হচ্ছে এখনো আমি ঘুমের ঘোরেই আছি। এই অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মত নয়। আমি যখন খুশির সংবাদটা পাই তখন আমি বাবা-মা আর স্বামীর সঙ্গে বাসায় ছিলাম। সংবাদটা পেতেই আনন্দে আমরা সবাই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ি। চোখ ভিজে আসে।

ইনডোর ৬০ মিটার স্প্রিন্টে ইরানের হয়ে এখন পর্যন্ত রেকর্ড ধরে রেখেছেন ফারজানে। এবার অলিম্পিকের মত এত বড় আসরে অংশ নেয়ার সুযোগ পেয়ে তা হেলায় হারাতে চান না এই অ্যাথলেট। চান নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে আগের সব রেকর্ড ভাঙতে।

ফারজানে ফাসিহি বলেন, ইরানিয়ান অ্যাথলেট হিসেবে আমি চাই অলিম্পিকে আমার সর্বোচ্চটা দিতে। আমার লক্ষ্য থাকবে ইরানের আগের রেকর্ড আবারো ভেঙ্গে নতুন রেকর্ড গড়ার। অর্থাৎ ইরান এতদিন এই ইভেন্টে যে রেকর্ড নিয়ে ছিলো, সেটার চেয়ে ভালো করতে চাই আমি।

অলিম্পিকে সুযোগ পেতে ফারজানেকে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে। পার হতে হয়েছে অনেক ধাপ। তারপরও দিনশেষে এমন প্রাপ্তিতে যেনো নেই আনন্দের কোন সীমানা।ফারজানে ফাসিহি আরও বলেন, গেলো ১৫ বছর ধরে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছিলাম এই দিনটার জন্য। সৃষ্টিকর্তাকে অনেক ধন্যবাদ যে গেলো দু’বছর আমরা আমাদের পারফরম্যান্সের মাধ্যমে নিজেদের প্রমাণ করতে পেরেছি। তিনবার জাতীয় রেকর্ড ভেঙ্গেছি। দুইবার আন্তর্জাতিক আসরে সুযোগ করে নিয়েছি। আর এজন্যই আমরা আজ অলিম্পিকে খেলার সুযোগ পাচ্ছি।

ইরানের নবম নারী অ্যাথলেট হিসেবে টোকিও অলিম্পিকের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন ফারজানে। লড়বেন অসাম্প্রদায়িক কোটায়। সূত্রঃ সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here