অনলাইন ডেস্কঃ দাবদাহে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলও। দেশটিতে তীব্র গরমে এরইমধ্যে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে বলে সতর্কতা জারি করেছে জাতিসংঘ। ইউরোপের দেশগুলোতেও বাড়ছে তাপমাত্রা।

গরম থেকে রক্ষা পেতে প্রাণীরাও ছুটছে পানির দিকে। যুক্তরাষ্ট্রের পোর্টলান্ডের সমুদ্রতীরগুলো এখন মানুষে ভর্তি। কারণ অঙ্গরাজ্যজুড়ে চলছে তীব্র দাবদাহ। তাই যে যেভাবে পারছেন একটু প্রশান্তি খোঁজার চেষ্টা করছেন।অরেগনে মঙ্গলবার তাপমাত্রা ছিল সবচেয়ে বেশি, প্রায় ৪৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিন ওয়াশিংটনেও তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে গিয়ে দাঁড়ায়। দেশটিতে তীব্র গরমে মারা গেছেন বেশ কয়েকজন। দাবদাহের কারণে এরইমধ্যে বিভিন্ন শহরে কুলিং সেন্টার চালু করা হয়েছে।

স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, একদিকে গরম অন্যদিকে বিদ্যুৎ থাকছে না। জীবন অতিষ্ট হয়ে পড়ছে। আরেক বাসিন্দা বলেন, এখানে অনেক গরম। তাই আমরা একটু ছায়া তৈরির চেষ্টা করছি যা সবাইকে শান্তি দেবে।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের চলমান দাবদাহ নিয়ে সতর্ক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির মুখপাত্র জানান, আগামী কয়েকদিন দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্যগুলোতে তাপমাত্রা আরও বাড়বে। দাবদাহের জন্য জলবায়ু পরিবর্তনই দায়ী বলেও উল্লেখ করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্রে দাবদাহ মারাত্মক রূপ নিয়েছে। অনেক জায়গায় ৪৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসের ওপরে তাপমাত্রা বিরাজ করছে, যা এর আগে কখনো দেখা যায় নি। তবে, শুধু পশ্চিমাঞ্চল নয় যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য অংশেও তাপমাত্রা বাড়ছে। যা ভয়াবহ রূপ নিতে পারে।

এদিকে, রাশিয়াতেও চলছে দাবদাহ। বেশকয়েকদিন ধরেই দেশটির তাপমাত্রা বাড়ছে। ইউরোপের অন্যান্য দেশেও তীব্র গরমে অতিষ্ট জনজীবন। চলতি সপ্তাহেই গ্রিসে তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। স্পেনে প্রতিদিনই তাপমাত্রা কয়েক ডিগ্রী সেলসিয়াস করে বাড়ছে। ফ্রান্সে খুব দ্রুত তাপমাত্রা বাড়বে বলে সতর্ক করেছে দেশটির আবহাওয়া দফতর। সূত্রঃ সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here