অনলাইন ডেস্কঃ করোনাভাইরাসের ‘ডেল্টা প্লাস’ ধরন একজন থেকে ১৩ জনে ছড়াতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে প্রমাণ পেয়েছেন পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীরা।

চলমান টিকাদান কর্মসূচির মধ্যেও বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ছেডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্ট। ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির খবর অনুযায়ী, ভারত ছাড়াও বিশ্বের অন্তত নয়টি দেশে করোনার নতুন এই ভ্যারিয়েন্টটির সন্ধান পাওয়া গেছে।

দেশগুলোর মধ্য রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, চীন, পর্তুগাল, সুইজারল্যান্ড, জাপান, পোল্যান্ড, নেপাল এবং রাশিয়া।

ভারতে ডেল্টা প্লাস সবচেয়ে বেশি থাবা বসিয়েছে মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র ও কেরালায়। চিকিৎসায় যেসব ওষুধ ও উদ্ভাবিত ভ্যাকসিন রয়েছে তা কতটা কার্যকর তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন চিকিৎসকরা।

দিল্লির ইনস্টিটিউট অব জিনোমিকস অ্যান্ড ইন্টিগ্রেটিভ বায়োলজির পরিচালক ডা. অনুরাগ আগারওয়ালের মতে,পূর্ববর্তী ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্তদের তুলনায় ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্তদের হাসপাতালে ভর্তির সম্ভাবনা প্রায় দ্বিগুণ।

ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণের ক্ষেত্রে করোনাভাইরাসের সাধারণ উপসর্গের পাশাপাশি আরও কিছু বিশেষ উপসর্গের উপস্থিতি থাকে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্টের অন্যতম প্রধান উপসর্গ মাথাব্যথা। এর পাশাপাশি গলা ব্যথা, সর্দি এবং জ্বরও থাকতে পারে। তবে এই ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হলে স্বাদ বা গন্ধের অনুভূতি চলে যাওয়ার সম্ভাবনা কম।

গত মে মাসে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ভারতে করোনার নতুন ধরনের নাম দেয় ডেল্টা। যা বি.১.৬১৭.২ নামেও পরিচিত। ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের নেপথ্যে রয়েছে এ ডেল্টা ধরন। এর পরিবর্তিত রূপের নাম দেওয়া হয়েছে ‘ডেল্টা প্লাস’ বা ‘এওয়াই.১’। সূত্রঃ সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here