অনলাইন ডেস্কঃ চলতি শতাব্দীর শুরু থেকেই টানপড়েনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে আফগানিস্তান ক্রিকেট। যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশটি কখনো খেলেছে ভারতের মাটিতে আবার কখনো সংযুক্ত আরব আমিরাতে। এবার কাতারকে হোম ভেন্যু বানাচ্ছে তারা।

নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে কাতারে একটি সিরিজ খেলবে মোহাম্মদ নবি বাহিনী। আগামী বছর শুরু হবে দু’দলের তিন ম্যাচের এই ওয়ানডে সিরিজ। সিরিজের প্রথম ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে ২১ জানুয়ারি। দ্বিতীয় ম্যাচ ২৩ জানুয়ারি, ২৫ জানুয়ারি মাঠে গড়াবে তৃতীয় ও সবশেষ ম্যাচটি।

দেশের মাটিতে খেলতে না পারা যে কোনো দেশের জন্যই কষ্টের। আফগানিস্তান এই সমস্যার মুখোমুখি হয়ে আসছে বহু দিন ধরে। শুধু দেশটির ক্রিকেটাঙ্গনই না, সবকিছুই ছিল ভোগান্তির মধ্য। গত আগস্টে আফগানিস্তানে টালমাটাল পরিস্থিতিতে নিজের পরিবার নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন রশিদ খান, সে সময় তিনি অবস্থান করছিলেন ইংল্যান্ডে। তালেবান আর মার্কিনিদের সংঘাতে শঙ্কায়-উৎকণ্ঠায় সময় কাটছিল এই লেগ স্পিনারের। স্কাই স্পোর্টসকে এ তথ্য জানান ধারাভাষ্যকার ও সাবেক ইংল্যান্ড ক্রিকেটার কেভিন পিটারসেন।
পিটারসেন বলেন, ম্যাচ চলাকালীন ও ম্যাচ শেষে রশিদ খানের সঙ্গে আমার অনেকক্ষণ কথা হয়েছে। সে তার দেশের বর্তমান অবস্থা নিয়ে খুবই ঘোরের মধ্য আছে। না পারছে সে দেশে যেতে, না পারছে নিজের পরিবারকে সেখান থেকে বের করে আনতে। এই কারণেই সে ম্যানচেস্টার অরিজিনালের বিপক্ষে জয়ের পর তেমন প্রতিক্রিয়া দেখায়নি।
এর আগে নিজের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে রশিদ খান বলেন, প্রিয় রাষ্ট্রনেতারা, আমার দেশ বিশৃঙ্খল অবস্থায় রয়েছে। শিশু এবং নারীসহ হাজার হাজার নির্দোষ মানুষ প্রতিদিন মারা যাচ্ছেন। ঘর-বাড়ি ধ্বংস হচ্ছে। হাজার হাজার পরিবারের ক্ষতি হচ্ছে। এমন অবস্থায় আমাদের ছেড়ে যাবেন না। আফগানদের হত্যা করা বন্ধ হোক, আফগানিস্তানকে ধ্বংস করা বন্ধ হোক। আমরা শান্তি চাই। সূত্রঃ সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here