অনলাইন ডেস্কঃ সড়ক দুর্ঘটনায় সহপাঠী নিহতের ঘটনায় নটরডেম কলেজের শিক্ষার্থীরা রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন। এসময় অভিযুক্ত চালকের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের দাবি করেন তারা। পরে দোষীদের বিচার ও বাসে ‘হাফ ভাড়ার’ দাবি পূরণে শনিবার পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়ে রাস্তা ছেড়েছে শিক্ষার্থীরা।

এই সময়ের মধ্যে দাবি আদায়ের বিষয়ে কোনো আশ্বাস না পেলে আগামী শনিবার বেলা ১১টা থেকে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে। পাশাপাশি সড়ক নিরাপদ করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

প্রতিবাদের ভাষা আর ক্ষোভের আগুনের প্রতিচ্ছবি দেখা গেল রাজপথে। বেপরোয়া গাড়ির চাপায় আবারও ঝরেছে শিক্ষার্থীর প্রাণ। সিটি করপোরেশনের গাড়িচাপায় সহপাঠীকে হারানোর শোক রূপ নিয়েছে বিক্ষোভে। রাজপথে সহপাঠীকে হারানোয় বিচার দাবিতে তাই রাজপথেই নটরডেম কলেজের শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) সকাল থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় প্রতিবাদ কর্মসূচির পর জড়ো হন গুলিস্তানের বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে। সড়ক অবরোধ করে স্লোগান-মিছিলে দাবি তুলেন নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতের।

তারা বলেন, আমরা কোনো ঘাতকের হাতে সড়কে প্রাণ দেব না। আমরা আধুনিক বাংলাদেশের জন্য প্রাণ দেব। সরকারী গাড়ির নিচে আমাদের প্রাণ গেলে সে দায় কে নিবে? এই দায় সরকারের।

কয়েক ঘণ্টা অবস্থানের পর দুপুরে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে নগর ভবনে যান শিক্ষার্থীরা। সেখানেও অবস্থান চলে দুই ঘণ্টার বেশি সময়। অভিযুক্তদের সর্বোচ্চ শাস্তিসহ ৬ দফা দাবি মেয়রের কাছে তুলে ধরেন শিক্ষার্থীরা।

এসময় শিক্ষার্থীদের সব দাবির সঙ্গে একাত্মতা জানিয়ে অভিযুক্তদের সর্বোচ্চ শাস্তির আওয়াজ তোলেন মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।। বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের নিজের শক্তিতে পরিণত করে জঞ্জালমুক্ত করবেন দক্ষিণ সিটি করপোরেশনকে।

তিনি বলেন, সে সময় যে গাড়ি চালিয়েছিলো সেই খুনির সর্বোচ্চ শাস্তি আমরা নিশ্চিত করব। আমি নিজেই দাবি করছি, এই খুনির যেন ফাঁসি হয়।

এদিকে, নটরডেমের শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের কর্মসূচিতে প্রতিবাদমুখর থাকে ফার্মগেট, শান্তিনগর, মতিঝিল, উত্তরা, সাইন্সল্যাবসহ রাজধানীর বিভিন্ন স্থান। স্লোগানে-মিছিলে অপরাধীর শাস্তি আর নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতের দাবি তুলেন শিক্ষার্থীরা। সূত্রঃ সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here