অনলাইন ডেস্কঃ ভারতের মহারাষ্ট্রের বীড জেলায় গত ছয় মাস ধরে ৪০০ জনের বেশি ব্যক্তি তাকে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ করেছে ১৬ বছরের এক কিশোরী।

বর্তমানে ২ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ওই কিশোরীর দাবি, থানায় অভিযোগ জানাতে গিয়েও এক পুলিশকর্মীর লালসার শিকার হতে হয়েছে।

চলতি সপ্তাহে অভিযোগ দায়ের হয়েছে পুলিশে। বীড জেলার পুলিশ সুপার রাজা রামাস্বামী জানিয়েছেন, কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে তিনজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে।

এই ঘটনার প্রেক্ষিতে রোববার পুলিশ সুপার রাজা রামাস্বামী রাজা বলেন, ‘নির্যাতিতার অভিযোগের ভিত্তিতে শিশুবিবাহ, ধর্ষণ, যৌননিগ্রহ এবং পকসো আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত ছয় মাসে ৪০০ জন কিশোরীকে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ। এক পুলিশকর্মীও ধর্ষণে অভিযুক্ত। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।’
নির্যাতিতা কিশোরীর অভিযোগ থেকে জানা যায়, তার মা মারা গেছেন বেশ কয়েক বছর আগে। আট মাস আগে তার বাবা বিয়ে দিয়ে দেন। কিশোরীর অভিযোগ, শ্বশুরবাড়ির লোক তাকে মারধর করে। খারাপ ব্যবহার করে। সেখান থেকে পালিয়ে বাবার কাছে ফিরে এসেছিল সে। কিন্তু বাবা আশ্রয় দেননি।
তার পর বীড জেলার আম্বাজোগাই বাসস্ট্যান্ডে বাধ্য হয়ে ভিক্ষা চাইতে শুরু করে সে। এই সময় থেকেই তার ওপর অত্যাচার শুরু হয়েছিল বলে জানায় ওই কিশোরী।
এক শিশু অধিকার রক্ষা কমিটিকে ওই কিশোরী বলেছে, ‘বহু লোক আমাকে নির্যাতন করেছে। আমি আম্বাজোগাই থানায় অভিযোগ জানাতে অনেকবার গিয়েছি। কিন্তু অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি। এক পুলিশকর্মীও আমার ওপর অত্যাচার করেছে।’ অভিযোগ দায়েরের পর এখন পর্যন্ত  গ্রেপ্তার হয়েছে মাত্র তিনজন। সূত্রঃ সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here