অনলাইন ডেস্কঃ করোনাকালে বিধিনিষেধের কারণে সব কর্মকাণ্ড স্থবির হয়ে পড়ায় ২০২০ সালে বিশ্বব্যাপী কার্বন নির্গমন কমেছে ৭ শতাংশ। কিন্তু ব্রাজিলে হয়েছে উল্টো। ব্রাজিলে ২০২০ সালে গ্রিনহাউজ গ্যাস নির্গমন বেড়েছে ৯.৫ শতাংশ। নির্বিচারে বন উজাড়ের কারণে এ অবস্থা তৈরি হয়েছে বলে জলবায়ু পরিবর্তন বিশেষজ্ঞদের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। করোনা মহামারির মধ্যে ব্রাজিলই একমাত্র দেশ যারা দূষণ কমাতে পারেনি। খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

ক্লাইমেট অবজারভেটরির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্রাজিল ২০২০ সালে ২.১৬ বিলিয়ন টন কার্বন ডাই-অক্সাইডের সমতুল্য গ্যাস নিঃসরণ করেছে। ২০০৬ সালের পরে এই পরিমাণ সর্বোচ্চ।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্রাজিলে বিশেষ করে আমাজনে বন উজাড় বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৯ সালে ডানপন্থী প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারো ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে কৃষি ও খনিজ অনুসন্ধানের জন্য সংরক্ষিত ভূমি উন্মুক্ত করে দেয়ায় বন উজাড় বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়াও, কৃষিকাজ, গবাদি পশুপালন এবং জমি পরিষ্কার করার মাধ্যমে বায়ুমণ্ডলে কার্বন নির্গত হয়। বিশ্বের বৃহত্তম উৎপাদক এবং সয়া ও গরুর মাংস রফতানিকারক দেশটির জন্য এটি একটি বড় সমস্যা।

উল্লেখ্য, বোলসোনারোর ক্ষমতাকালে ব্রাজিলের আমাজানে এক বছরে ১০,০০০ বর্গ কিলোমিটার বনভূমি উজাড় হয়েছে। আয়তনের হিসাবে এটি লেবাননের সমান এলাকা। এক বছর আগে এই বন উজাড়ের পরিমাণ ছিল ৬,৫০০ বর্গকিলোমিটার। সূত্রঃ যমুনা নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here