অনলাইন ডেস্কঃ ৬টি ক্ষেত্রে নোবেল দেয়া হলেও বরাবরই আগ্রহের কেন্দ্রে থাকে নোবেল শান্তি পুরস্কার। আগামী শুক্রবার বিকেলে নরওয়ে থেকে ঘোষণা হবে এই পুরস্কার বিজয়ীর নাম। এবার এই ক্যাটাগরিতে মনোনয়ন পেয়েছেন ২৩৪ জন ব্যক্তি ও ৯৫টি প্রতিষ্ঠান। আলোচনায় আছেন নিউজিল্যান্ড প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন, তরুণ পরিবেশকর্মী গ্রেটা থুনবার্গ থেকে শুরু করে ডব্লিউএইচওর মতো সংস্থা।

সহিংসতা-সংঘাত আর করোনার প্রকোপের মধ্যেই আলোচনার তুঙ্গে কে পাচ্ছেন এ বছরের শান্তিতে নোবেল। নিশ্চিত ইঙ্গিত না মিললেও কার ঝুলিতে জুটবে এবারের নোবেল তাই নিয়ে চলছে নানান হিসেব নিকেশ।

করোনা মহামারির লাগাম টানতে সম্মুখসারির বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নাম আছে আলোচনার শুরুতে। বিশ্বজুড়ে পরিচালিত টিকাদান প্রকল্প কোভ্যাক্স সফলভাবে পরিচালনা করায় সংস্থাটির নোবেল জয়ের সম্ভাবনা বেশি।

অভিবাসী এবং শরণার্থীদের অধিকার নিয়ে অবদান রাখায় শান্তিতে নোবেলের জন্য আলোচনায় আছে ইউএনএইচসিআরও। অপরদিকে তালিকায় আছে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের নাগরিকদের মানবাধিকার নিশ্চিত এবং শান্তি প্রতিষ্ঠায় কর্মরত দুটি প্রতিষ্ঠান বিসালেম এবং পিসিএইচআর। এছাড়াও আলোচিত হচ্ছে পোল্যান্ডের বিচারপতিদের সংগঠন লুস্তিতিয়া।

বিশ্বজুড়ে গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় কাজ করা সংস্থা রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স এবং হংকং ভিত্তিক বার্তা সংস্থা এইচকেইপি নিয়েও আলোচনা চলছে জোরেশোরে।

এদিকে চলতি বছর শান্তিতে নোবেল বিজয়ী হিসেবে ব্যক্তিদের মধ্যে আলোচিত হচ্ছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন। জোরালো গুঞ্জন রয়েছে রাশিয়ার বিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনি ও সুইডেনের তরুণ জলবায়ুকর্মী গ্রেটা থুনবার্গকে নিয়েও। এছাড়া উইঘুরের মানবাধিকার ইস্যুতে সোচ্চার ইলহাম তোহতি, হংকংয়ের গণতন্ত্রপন্থী নেতা নাথান ল, বেলারুশের বিরোধী দলীয় নেতা সেভেতলানা সিখানোস্কায়ার নামও আছে শান্তিতে নোবেলের সম্ভাব্য তালিকায়।

শুক্রবার চলতি বছরের শান্তিতে নোবেল বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হবে। ডিসেম্বরে বিজয়ীর হাতে তুলে দেওয়া হবে পুরস্কারের পদক, সনদ ও অর্থ। তবে করোনা মহামারির কারণে এবার বিজয়ীরা নিজ নিজ দেশে বসেই পুরস্কার গ্রহণ করবেন। সূত্রঃ যমুনা নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here