অনলাইন ডেস্কঃ ক্রিকেট ইতিহাসে বড় ঘটনা। এমসিসি বা মেরিলিবোর্ন ক্রিকেট ক্লাবের ২৩৪ বছরের ইতিহাসে প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট হলেন ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক ক্লেয়ার কোনর। যার অধিনায়কত্বে একসময় অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে অ্যাসেজ জিতেছিল ইংল্যান্ড।

শ্রীলঙ্কার সাবেক ক্রিকেটার কুমারা সাঙ্গাকারার জায়গায় প্রেসিডেন্ট হলেন তিনি। এমসিসি একদিকে যেমন ক্রিকেটের ধারকবাহক, তেমনই নতুন নিয়ম বা আইনের প্রনোয়ণের ক্ষেত্রেও মুখ্য ভূমিকা নেয়। এক বছরের জন্যই প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন সাঙ্গাকারা। কিন্তু করোনার কারণে নির্বাচন প্রক্রিয়া বন্ধ রেখেছিল এমসিসি। সাঙ্গাকারার মেয়াদ শেষ হলেই ক্লেয়ার দায়িত্ব নেবেন। শ্রীলঙ্কার সাবেক অধিনায়ক কুমারা সাঙ্গাকারাই ক্লেয়ারের নাম ঘোষণা করেছেন পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে।

এক বিবৃতিতে ক্লেয়ার বলেছেন, আমি নিজেকে অসম্ভব সম্মানিত মনে করছি। সেই সঙ্গে সাঙ্গাকারাকে ধন্যবাদ দিতে চাই, আমার উপর আস্থা রাখার জন্য। একটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে আমাকে। যে ক্রিকেটকে চিরকাল ভালোবেসে এসেছি, সেই খেলার উন্নতি করার আপ্রাণ চেষ্টা করব।

১৯৯৫ সালে ক্লেয়ারের অভিষেক হয়েছিল ইংল্যান্ডের হয়ে। তখন তার বয়স মাত্র ১৯ বছর। ২০০০ সালে ইংল্যান্ডের ক্যাপ্টেন হয়েছিলেন। অলরাউন্ডার ক্লেয়ার মনে রাখার মতো অনেক ম্যাচ খেলেছেন। ক্লেয়ার বলেছেন, “ক্রিকেটে আমার দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগাতে চাই। সেই সঙ্গে বোর্ডরুমে আমার সতীর্থ থাকবেন যারা, তাদের সহযোগিতাও চাই। ক্রিকেটকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্যই আমরা একসঙ্গে পথ চলব। আগামী একটা বছর আমার জীবনের অত্যন্ত গুরুত্রপূর্ণ সময়।”

এরই মধ্যে এমসিসির বার্ষিক সভায় নতুন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ব্রুস কর্নেগি-ব্রাউন। তিনিও বলেছেন, “একদিকে সম্মান যেমন, অন্য দিকে তেমন বড় দায়িত্ব। ইংল্যান্ডের ক্রিকেটকে পরিকাঠামোগত দিক থেকে বটেই, আধুনিকতার দিক থেকেও সার্বিক চেহারা দিতে চাই।” সূত্রঃ বিডি-প্রতিদিন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here