অনলাইন ডেস্কঃ বুধবার এয়ার কোয়ালিটি গাইডলাইনস বিষয়ক এক প্রতিবেদনে ডব্লিউএইচও সংস্থাটি এই তথ্য জানিয়েছে। বায়ুদূষণ প্রতিরোধ করতে এখনই জরুরি পদক্ষেপ নিতে হবে। নয়তো আরও ভয়াবহ হতে পারে পরিস্থিতি বলে জানানো হয়।

মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য অন্যতম পরিবেশগত হুমকি বায়ুদূষণ। সমস্যাটি সমাধানে বিশ্বজুড়ে বায়ুর মান উন্নত করতে এয়ার কোয়ালিটি গাইডলাইনস আরও জোরদার করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

নতুন একিউজিএস প্রকাশ করে বুধবার বৈশ্বিক এ সংস্থাটি জানিয়েছে, বায়ুদূষণ প্রতিরোধ করতে জরুরি পদক্ষেপ নিতে হবে। কেননা বিশ্বজুড়ে বায়ুর মানের সূচক নিম্নমুখী। যা জনস্বাস্থ্যে বিরূপ প্রভাব ফেলছে। এমনকি এর কারণে অস্বাস্থ্যকর খাবার ও ধূমপানের চেয়েও বেশি স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি তৈরি হয়েছে।

সংস্থাটির মতে, বিশ্বজুড়ে জলবায়ু পরিবর্তনের পাশাপাশি বায়ুদূষণ জনস্বাস্থ্যের জন্য অন্যতম পরিবেশগত হুমকি হিসেবে দেখা দিয়েছে।

বায়ুর মানের নতুন গাইডলাইন বায়ুদূষণের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে লাখো মানুষকে সুরক্ষা দেবে বলে মনে করছে ডব্লিউএইচও।

একই সঙ্গে ঝুঁকিতে থাকা দেশের সরকারকে বায়ুদূষণের বিরুদ্ধে লড়তে আইনগত সীমা নির্ধারণে সহায়তা করবে। পাশাপাশি কমিয়ে আনবে স্বাস্থ্যঝুঁকি।

সবশেষ ২০০৫ সালে একিউজিএস প্রকাশ করেছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। ২০০৫ সালের পর থেকে ১৬ বছর ধরে সংগ্রহ করা তথ্য অনুযায়ী এখনই বায়ুদূষণ প্রতিরোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

তবে কোনো নির্দিষ্ট দেশ কিংবা অঞ্চলভেদে নয়, বরং বিশ্বজুড়েই নিতে হবে পদক্ষেপ। এদিকে আগামী অক্টোবরে স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে বসছে জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক বৈশ্বিক সম্মেলন কপ-২৬। তার আগে বায়ুদূষণ নিয়ে নতুন এ গাইডলাইন প্রকাশ করল ডব্লিউএইচও। সূত্রঃ বিডি প্রতিদিন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here