অনলাইন ডেস্কঃ করোনাকালে কমবেশি সবাই ভিটামিন সি জাতীয় খাবার খাদ্য তালিকায় রাখছেন। শরীরের জন্য ভিটামিন সি কতখানি উপকারী কমবেশি সবারই জানা। অনেকেই রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে নিয়মিত ভিটামিন সি সাপ্লিমেন্ট হিসেবে গ্রহণ করে থাকেন। বিশেষ করে করোনাকালে এর গুরুত্ব আরও বৃদ্ধি পেয়েছে।
ভিটামিন সি শরীর থেকে টক্সিক নির্গত করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি বিপাকক্রিয়া সুষ্ঠু রাখে। এ ভিটামিন ওজন কমাতেও সহায়তা করে। সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ যে কাজটি করে তা হল শরীরের রোগপ্রতিরোধ শক্তিকে উন্নত করে তোলে।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, একজন ব্যক্তির প্রতিদিন গড়ে ৪৫ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি খাওয়া উচিত। ভিটামিন সির অভাবে নানা স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দেয়। এর মধ্যে অন্যতম হলো স্কার্ভি। খাদ্য তালিকায় এ ভিটামিনের গুরুতর অভাব থাকলে স্কার্ভি হতে পারে। ইউনিভার্সিটি অফ ওয়াশিংটনের পক্ষ করা একটি সমীক্ষায় বলা হয়েছে যে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যে পরিমাণ ভিটামিন সি গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছে, তা অত্যন্ত কম।
আমেরিকান জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশনে এ সমীক্ষার রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। গবেষকদের মতে, ৯৭ দশমিক শতাংশ জনসংখ্যার দুর্বল ক্ষত শক্তি প্রতিরোধের জন্য দৈনিক ৯৫ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি গ্রহণ করা উচিত। যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদিত দৈনিক ভিটামিন সির চাহিদার দ্বিগুণ, তবে এটি ন্যাশনাল একাডেমি অব মেডিসিন এবং অন্যান্য দেশের রাইটিং প্যানেলের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ।
এই গবেষণার ভিত্তিতে বলা যায়, শারীরিক সক্ষমতা ও সুস্থতা বজায় রাখার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন সি গ্রহণ করা উচিত। অনেক ধরনের ফল ও সবজিতে ভিটামিন সি পাওয়া যায়। এর মধ্যে আমলকি, লেবু, ব্রকোলি, ক্যাপসিকাম, কাঁচা ও পাকা পেঁপে উল্লেখযোগ্য। পুষ্টিবিদদের মতে, প্রতিদিনের ভিটামিন সির চাহিদা পূরণ করতে এসব ফল ও সবজি খাদ্য তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। তবে কম পরিমাণে খাওয়া যেমন স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর, তেমনই বেশি পরিমাণে ভিটামিন সি খেলেও সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। সূত্র: সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here