অনলাইন ডেস্কঃ সাবেক অর্থমন্ত্রী ও সিলেট-১ আসনের সাবেক এমপি ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য আবুল মাল আবদুল মুহিত করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত হয়েছেন। তার করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) সাবেক অর্থমন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকর্তা কিশোর ভট্টাচার্য জনি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, করোনামুক্ত হলেও সাবেক অর্থমন্ত্রীর শারীরিক দুর্বলতা আছে। কিন্তু, চিকিৎসকরা জানিয়েছেন বিষয়টি স্বাভাবিক। এ সমস্যা কেটে যাবে।
 
৮৭ বছর বয়সী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের নমুনা পরীক্ষায় গত ২৪ জুলাই করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর থেকে রাজধানীর বনানীর বাড়িতে আইসোলেশনে ছিলেন তিনি।

 এ অবস্থায় ২৮ জুলাই বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তাকে সিএমএইচে ভর্তি করা হয়। তার তেমন শারীরিক জটিলতা না থাকলেও শ্বাসকষ্টজনিত জটিলতার শঙ্কা এড়াতে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয় বলে পরিবার থেকে জানানো হয়।

প্রথমে সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিতের বাসার একজন গৃহকর্মীর করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর বাসার সবার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। নমুনা পরীক্ষায় আবুল মাল আবদুল মুহিতের পাশাপাশি তার ছেলে শাহেদ মুহিতের শরীরেও করোনা শনাক্ত হয়। শাহেদ এখন বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন। মুহিত ইতোমধ্যে করোনা টিকার দুটি ডোজই নিয়েছেন।
 
এরআগে গত ১ আগস্ট সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে দেখার জন্য সস্ত্রীক হাসপাতালে যান তার ভাই পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।
 
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন সাক্ষাত করতে চাইলে বর্তমানে করোনা রোগীর সংখ্যা বেশি থাকায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে সেখানে না যেতে অনুরোধ করেন।
 
পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দুই ভাইয়ের মধ্যে কথা বলার সুযোগ করে দেন। এতে করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন বড় ভাই আবুল মুহিতের সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলেন।
 
এ সময় সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত হাসপাতালে তার দুটি অভিযোগের কথা জানান ছোট ভাই মোমেনকে। এর মধ্যে একটি হচ্ছে, হাসপাতালে আসার পর তিনি কোনো পত্রিকা পাচ্ছেন না। আর অন্যটি হচ্ছে, হাসপাতালে তার সঙ্গে কোনো বই নেই, তাই হাসপাতালে তার সময় পার করতে খুবই কষ্ট হচ্ছে।
 
এ এম এ মুহিতের এ অভিযোগ শুনে ড. মোমেন বড় ভাইকে আশ্বস্ত করে বলেন, শিগগিরই সেটা ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে।
 
এদিকে, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ করে আবুল মাল আবদুল মুহিতের চাহিদামতো হাসপাতালে বড় ভাই মুহিতের জন্য ৪টি জাতীয় পত্রিকা ও ৪টি বই পাঠিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। সূত্রঃ সময় নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here