জার্মানির একটি উচ্চ আদালত গত বৃহস্পতিবার (২৭ আগস্ট) ঘোষণা করেন বার্লিনের স্কুলে মুসলিম শিক্ষিকারা এবার থেকে হিজাব পরতে পারবেন।

বিগত কয়েক বছর ধরে জার্মানির বার্লিনে বসবাসকারী এক মুসলিম নারীর আবেদনের ভিত্তিতে জার্মানির উচ্চ আদালতে একটি মামলা চলছিল।

জার্মানিতে রয়েছে নিরপেক্ষতার আইন। যেখানে কোনো পক্ষবাদী চলেনা। আর এই অর্থে দেশটিতে কোনো স্কুল বা সরকারি প্রতিষ্ঠানে ধর্মীয় কোনো চিহ্ন বা চিহ্ন ব্যবহারকারী কোনো পোশাক পরা সম্পূর্ণ নিষেধ। যার ফলে মুসলিম শিক্ষিকারা স্কুলে স্কার্ফ বা হিজাব পরে যেতে পারতেন না।

জার্মানির বার্লিনের এক মুসলিম নারী দেশটির এমন আইনের বিরুদ্ধে আদালতে একটি মামলা করেন। এবং ২০১৮ সালে দীর্ঘদিন ধরে চলা সেই শুনানির পরে বার্লিনের আদালত ওই নারীর পক্ষে রায় ঘোষণা দেন। এবং মুসলিম নারীদের হিজাব পরে স্কুলে যাওয়াকে অনুমুতি দেয়।

আদালতটি পাশাপাশি মামলাকারী ওই মুসলিম নারীকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে প্রায় ৫ হাজার ১৫৯ ইউরো দেয়ার নির্দেশ দেয়। তবে সরকারদলের এক উকিল এই রায়ের বিপরীতে উচ্চ আদলাতে আবেদন করেন।

স্কুলে মুসলিম নারীদের হিজাব বা স্কার্ফ পরা নিয়ে বেশ কিছু দিন আগে বার্লিন ছাড়াও জার্মানির আরও কয়েকটি রাজ্যে বেশ গোলযোগ দেখা যায়। তাই এই অর্জনকে বার্লিনে বসবাসকারী মুসলিম নারীরা তাদের বড় বিজয় হিসেবে দেখছেন।

ঐ সময়েও ধর্মীয় অধিকার এবং স্বাধীনতা নিয়ে অনেক প্রশ্ন উঠে। তাই অনেকেই মনে করছেন বার্লিনের আদালতের এমন রায় জার্মানির অন্য আদালতগুলোকেও এ ব্যাপারে প্রভাবিত করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here