অনলাইন ডেস্কঃ পবিত্র ঈদুল ফিতরের ছুটিতে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ও শিমুলিয়া-মাঝিকান্দি নৌরুটে বেলা বাড়ার সাথে সাথে চাপ বেড়েছে যানবাহনের। প্রচণ্ড রোদে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করেও পারাপারে ভোগান্তিতে পড়েছে এ রুটের যাত্রীরা।

মাত্র সাতটি ফেরি দিয়ে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ও শিমুলিয়া-মাঝিকান্দি যাত্রী ও যানবাহন পারাপার হচ্ছে। গত ঈদে ১৩টি ফেরি দিয়ে পারাপার করা হলেও এবার ফেরি সংকট থাকায় বেশি ভোগান্তিতে পড়েছে ঢাকা থেকে আসা এই রুটের যাত্রীরা।

সোমবার (২৫ এপ্রিল) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ফেরি ঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে পণ্যবাহী ট্রাকসহ প্রায় তিন শতাধিক যানবাহন। এদিকে ফেরি সংকট ও সময়মতো ফেরি না ছাড়ায় ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চে ও স্পিডবোটে যাতায়াত করছে যাত্রীরা। এতে গুনতে হচ্ছে বাড়তি টাকা।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) ফয়সাল আহমেদ বলেন, দক্ষিণবঙ্গের অন্যতম এ নৌরুটে ভোর থেকে একটি মিনি রো-রো ফেরি, দুটি মিডিয়াম ও দুটি ডাম্প ফেরিসহ সর্বমোট সাতটি ফেরি চলাচল করছে। সকাল থেকেই যাত্রী ও যানবাহনের চাপ রয়েছে।বিআইডব্লিউটিএ’র শিমুলিয়া ঘাটের পরিবহন পরিদর্শক মো: সোলেমান জানান, ফেরির জন্য দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করে মানুষ লঞ্চ, স্পিডবোটে যাতায়াত করছেন। ভোর থেকে ১৫৩টি স্পিডবোট ও ৮৩টি লঞ্চ চলাচল করছে। সূত্রঃ নয়া দিগন্ত

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here