জেলা প্রতিনিধি লালমনিরহাট : লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধার ভাতা নিয়ে দু’জনের মাঝে মনমালিন্য দেখা দেয়ায় ফাঁস হয়েছে আসল ঘটনা। উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়নের বটতলী বানিয়াডাঙ্গী এলাকার আব্দুস সালাম ও আকবর আলী’র মধ্যে কে আসল আর কে নকল মুক্তিযোদ্ধা এ নিয়ে চলছে কানাঘুষা। যুদ্ধ করেছেন একজন আর ভাতা তুলে খাচ্ছেন আরেকজন? এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে এখন সবার মনে।

জানা গেছে, ওই এলাকার বাসিন্দা আব্দুস সালাম মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতে ট্রেনিংয়ের জন্য তালিকায় নাম তুলেন। লোকমুখে শোনা কথা পরবর্তীতে তিনি ভারতে যাননি। যুদ্ধও করেননি। বাড়ীর ছেলে বাড়ীতে ছিলেন।

অন্যদিকে, নিজ নামে ট্রেনিংয়ে যাওয়ার স্লীপ না পেয়ে যুদ্ধের ময়দান থেকে পালিয়ে আসা আব্দুস সালামের নাম তালিকার স্লীপটা নিয়ে ওই সময়ের সাহসী যুবক আকবর আলী যুদ্ধের ট্রেনিংয়ে ভারতে যান। ট্রেনিং শেষে তিনি যুদ্ধও করেন এমন হাজারও স্বাক্ষী আছে।

বাংলাদেশ স্বাধীনের পর যখন থেকে মুক্তিযোদ্ধার ভাতা দেয়া হয় তখন থেকে কাগজের বলে আব্দুস সালাম ভাতা পাচ্ছে আর যুদ্ধ করেও ভাতা বঞ্চিত সন্মুখ মুক্তিযোদ্ধা আকবর আলীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে কয়েকমাস সমান ভাগে দু’জনে ভাগ করে নিলেও গেল কয়েক বছর ধরে ভাতার সুবিধা পাচ্ছেন না আকবর আলী।

এ ব্যাপারে আকবর আলী নিজেকে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা দাবী করে ভাতা পেতে চান। আব্দুস সালাম কোন কথা বলতে রাজি হননি।

এব্যাপারে পাটগ্রাম উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার সালাউজ্জামান ফারুখ বলেন, বর্তমানে বিষয়টা নিয়ে সবাই একমত হয়েছে। কাগজে কলমে যেহেতু আব্দুস সালাম ভাতা পাচ্ছে সেহেতু আমরা আকবর আলী’র নাম প্রস্তাব করে তালিকা পাঠিয়েছি।

তার নাম মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় উঠে আসবে বলে প্রশাসনও কথা দিয়েছে। দীর্ঘদিনের এ সমস্যা সমাধান হলেই তবে প্রকৃত একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার আত্মা শান্তি পাবে বলে এলাকাবাসী মনে করেন।

এ ব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের দায়িত্বে থাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুন নাহারের বক্তব্য মিলেনি।  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here