অনলাইন ডেস্কঃ সম্প্রতি নেটফ্লিক্সের স্কুইড গেম সিরিজটি বিশ্বব্যাপী মোস্টওয়াচড টিভি শো এর তালিকায় এক নম্বর স্থান দখল করেছে। ২০০০ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত জাপানিজ ছবি ব্যাটল রয়্যাল থেকে অনুপ্রাণিত হয়েছে সিরিজ। সিরিজটি সম্পর্কে নেটফ্লিক্সের কো সিইও টেড সাদান্দোস ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন যে, এটি সর্বকালের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে যেতে পারে। সিরিজের কাটতি দেখে তার কথাটি সত্যি হতে যাচ্ছে বলেই মনে হয়।

নির্মাতা হোয়াং ডং হিউক স্কুইড গেম এর গল্পটি লিখেছিলেন ২০০৯ সালে। অনেক প্রযোজকের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও গত ১০ বছরে কোনো প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান গল্পটিকে ঠিক পছন্দ করেনি। এক পর্যায়ে অর্থের অভাবে স্ক্রিপ্ট লেখাই বন্ধ করে দেন হিউক। এমনকি পেটের দায়ে অনেক সাধের ল্যাপটপটিও বিক্রি করতে হয়েছিলো তাকে।

স্কুইড গেমের ঘটনা মূলত একটি গেমকে কেন্দ্র করে। যে গেমের প্রতিযোগী ৪৫৬ জন। আর গেমের খেলোয়াড়দেরকে পার করতে হবে ৬টা লেভেল। এবং সব লেভেল কমপ্লিট করতে পারলে বিজয়ী পাবে বিপুল পরিমাণ অর্থ। আর গেমগুলোও খুবই সাধারণ, যেমন মার্বেল খেলা, রেড লাইট-গ্রিন লাইট বা টাগ অফ ওয়ার ইত্যাদি। তবে শর্ত হলো খেলায় কেউ অ্যালিমিনেট হলে সাথে সাথে প্রাণ হারাবে সে। আর প্রতিযোগীরা কোনোভাবেই খেলা বন্ধ করতে পারবে না, খেলা বন্ধ করলে হত্যা করা হবে তাকে। আর নির্ধারিত সময়ের মধ্যে খেলা শেষ করতে না পারলেও ভাগ্যে রয়েছে মৃত্যু।

সিরিজটির মাত্র ৯টি এপিসোডে তুলে ধরা হয়েছে অনেক কিছু। লোভে পাপ, পাপে মৃত্যু’র মত সাধারণ প্রবাদের স্পষ্ট প্রতিফলন দেখা গেছে স্কুইড গেমে। টাকার জন্য মানুষ কী কী করতে পারে, সেই সাথে টাকার লোভ যে কতটা ভয়ংকর হতে পারে, সেটি তুলে ধরা হয়েছে এ সিরিজে। অল্প পরিচয়েও ডেডিকেটেড বন্ধুত্ব আর টাকার লোভে অনেক দিনের পরীক্ষিত বন্ধুও কীভাবে ধোঁকা দিতে পারে তার সবই রয়েছে স্কুইড গেম এ।

স্কুইড গেম এর এত জনপ্রিয়তা পাওয়ার পেছনের কারণ ব্যাখ্যা করেছেন সাংমায়ুং ইউনিভার্সিটির কালচারাল কনটেন্ট প্রফেসর কিম পিয়ং-গ্যাং। তার মতে, মানুষ, বিশেষ করে তরুণরা বাস্তবজীবনে বিচ্ছিন্নতা ও হতাশায় ভোগেন নিয়মিতই, চরিত্রগুলোর সঙ্গে নিজেদের মিল খুঁজে পাওয়াতেই এমন আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা পেয়েছে এ সিরিজ বলেই ধারণা তার।

উল্লেখ্য, কোরিয়ান শোবিজের সুপরিচিত তারকারা অভিনয় করেছেন এই সিরিজে। ইতোমধ্যে, স্কুইড গেম এর ২য় সিজনের স্ক্রিপ্ট লেখার কাজ শুরু হয়ে গেছে। সূত্রঃ যমুনা নিউজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here