নারায়ণগঞ্জে মসজিদে এসি বিস্ফোরণের ঘটনায় সব বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানির আওতাধীন এলাকায় মসজিদ-মন্দির ও অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের বিদ্যুৎ সংযোগ ও এসির অবস্থা পরীক্ষা করার জন্য নির্দেশ দিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ।ইতিমধ্যে এ বিস্ফোরণের ঘটনায় তিতাস তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এ কমিটি পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দেবে।

এদিকে বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ মসজিদে এসি বিস্ফোরণে হতাহতের ঘটনায় গভীর শোক ও দুঃখ শোক প্রকাশ করেছেন। শনিবার (০৫ সেপ্টেম্বর) এক শোকবার্তায় নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা এলাকার মসজিদে শুক্রবার (০৪ সেপ্টেম্বর) রাতে এসি বিস্ফোরণে নিহতদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত এবং আহতদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেন। একইসঙ্গে শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতিও গভীর সমবেদনা জানান।

আরো পড়ুন:-১. শরীরের ৩০ শতাংশ পুড়ে গেছে বার্ন ইউনিটে ভর্তি সবার
২. নারায়ণগঞ্জে মসজিদে একসাথে ছয়টি এসি বিস্ফোরণ!




নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর তল্লা এলাকায় একটি মসজিদে একসাথে ছয়টি এয়ার কন্ডিশনার বিস্ফোরণের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৬ জন মারা গিয়েছেন।এ ঘটনায় ৩৭ জনকে দগ্ধ অবস্থায় শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। যাদের সবার অবস্থাই আশঙ্কাজনক বলে জানান চিকিৎসকরা।শুক্রবার (০৪ সেপ্টেম্বর) রাতে এশার নামাজ চলাকালীন সময়ে নারায়ণগঞ্জ শহরের তল্লা বাইতুস সালাম মসজিদে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়দের সাথে কথা বললে তারা জানায়, মসজিদের ভিতর গ্যাসের লিকেজ ছিল। যদি সেই লিকেজ থেকে কোন বিস্ফোরণ ঘটতো তাহলে মসজিদের মেঝে ভেঙে যেতো। সে রকম কিছু ঘটেনি। কিন্তু এয়ার কন্ডিশনার গুলো দুমড়ে মুচড়ে গেছে। সে ক্ষেত্রে একটি বিস্ফোরণের শব্দ আশেপাশের মানুষ শুনতে পেয়েছে। সেহেতু মসজিদের ভিতর থাকা ৬টি এয়ার কন্ডিশনার একসঙ্গে কিভাবে বিস্ফোরণ ঘটলো সেই হিসাবে কেউ মেলাতে পারছেন না।


LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here