সারা দেশে মহামারি কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাবে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর আজ থেকে চালু হলো ১৮ জোড়া ট্রেন। এর মধ্যে আন্তঃনগর, কমিউটার ও মেইল ট্রেন রয়েছে। বাংলাদেশ রেলওয়ে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক করতে একযোগে আন্তঃনগর, কমিউটার ও মেইল ট্রেন সর্বমোট ১৮ জোড়া ট্রেন চালু করেছে।

ঢাকা এবং ঢাকার বাইরে বিভিন্ন রুটে ১৮ জোড়া যাত্রীবাহী এই ট্রেনগুলো আজ (২৭ আগস্ট) সকাল থেকে চালু হয়েছে।

জানা গেছে সকাল থেকে কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে ছেড়ে গেছে দেওয়ানগঞ্জ কমিউটার, নীলসাগর, সোনার বাংলা, তিস্তা, পারাবত ও সুন্দরবন এক্সপ্রেস, এগার সিন্দুর প্রভাতী এক্সপ্রেস এই ট্রেনগুলো।

চালু হওয়া ১৮ জোড়া ট্রেন গুলো হলোঃ পাহাড়িকা/উদয়ন এক্সপ্রেস চট্টগ্রাম-সিলেট-চট্টগ্রাম রুট, এগার সিন্দুর প্রভাতী এক্সপ্রেস ঢাকা-কিশোরগঞ্জ-ঢাকা রুট, দোলনচাঁপা এক্সপ্রেস  সান্তাহার- দিনাজপুর-সান্তাহার রুট, ঢালারচর এক্সপ্রেস ঢালারচর-রাজশাহী-ঢালারচর রুট, সাগরদাঁড়ি এক্সপ্রেস খুলনা-রাজশাহী-খুলনা রুট,বরেন্দ্র এক্সপ্রেস  রাজশাহী-চিলাহাটি-রাজশাহী রুট, সিল্কসিটি এক্সপ্রেস  রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রুট,করতোয়া এক্সপ্রেস  সান্তাহার-বুড়িমারী-সান্তাহার রুট, চট্টলা এক্সপ্রেস চট্টগ্রাম-ঢাকা-চট্টগ্রাম রুট,সোনার বাংলা এক্সপ্রেস চট্টগ্রাম-ঢাকা-চট্টগ্রাম রুট , যমুনা এক্সপ্রেস ঢাকা-তারাকান্দি-ঢাকা রুট।

‘স্বাস্থ্যবিধি মেনে এসব ট্রেন চলবে। ট্রেনের সংখ্যা বাড়ার ফলে যাত্রীর চাপও বাড়বে। সে লক্ষ্যে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি নজরদারির লক্ষ্যে আমাদের তৎপরতা আরও কড়াকড়ি করা হয়েছে’ এমনটাই জানায় কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন ম্যানেজার মোহাম্মদ আমিনুল হক।

করোনার প্রাদুর্ভাবে গত ২৪ মার্চ থেকে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এরপর গত ৩১ মে ১ম দফায় ৮ জোড়া আন্তনগর ট্রেন চালু হয়। দ্বিতীয় দফায় আরও ১১ জোড়া আন্তনগর ট্রেন চালু হয় গত ৩ জুন। এরপর আরও ১৩ জোড়া ট্রেন ১৬ আগস্ট তৃতীয় দফায় চালু করা হয়।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here