নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টার্চে ২০১৯ সালের ১৫ মার্চ এলোপাতাড়ি গুলি করে ৫১ মুসল্লিকে হত্যা, ৪০ জনকে হত্যাচেষ্টা ও সন্ত্রাস মামলার দায়ে অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারেন্টকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন স্থানীয় একটি আদালত। বৃহস্পতিবার (২৭ আগস্ট) এই রায় দেয়া হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবর থেকে জানা যায়, নিউজিল্যান্ডে এই প্রথম কোনো অপরাধীকে এমন শাস্তি দেয়া হয়েছে।

২০১৯ সালের মার্চে ক্রাইস্টার্চে জুমার দিনে মুসল্লিদের ওপর গুলি চালালে আল-নূর মসজিদের ৪৪ মুসল্লি ও লিনইউড মসজিদের ৭ মুসল্লি নিহত হন। নিহতদের মধ্যে ৩ বছর বয়ষী শিশুও ছিল।

গত রোববার (২৩ আগস্ট) ট্যারেন্টের এই অমানবিক অপরাধের রায়ের শুনানির জন্য তাকে ক্রাইস্টার্চে আনা হয়। এবং গত ২৪ আগস্ট (সোমবার) আদালতে হাজির করা হয় তাকে।

রায় ঘোষণার সময় ট্যারন্টের উদ্দেশে বিচারক ক্যামেরুন ম্যান্ডার বলেন,আপনার অপরাধগুলো এতটাই জঘন্য যে আপনাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হলেও এর সাজা পরিপূর্ণ হবে না। আপনি একটি গণহত্যা চালিয়েছেন। আপনি নিরস্ত্র ও প্রতিরোধবিহীন মানুষদেরকে খুন করেছেন।’

সাদা শ্রেষ্ঠত্ববাদী ব্রেন্টন ট্যারন্ট রায় ঘোষণার আগপর্যন্ত আদালতে কোনও মন্তব্য না রাখার সিদ্ধান্তে অটল ছিলেন। ট্যারেন্ট তার আইনজীবীর মাধ্যমে জানিয়েছেন যে প্যারোলহীন যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের বিষয়ে কোনো আপত্তি নেই তার।ক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here